কুমিল্লা জেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী কে এই বীর মুক্তিযুদ্ধা বাবলু – জয় বাংলার জয়
  1. admin@prothomaloonlinenews.com : admin :
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৫৪ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ

শিঘ্রই ম্প্রচারে আসছে রিয়ান টেলিভিশন। ২৪ ঘণ্টার পূর্ণাঙ্গ বাংলা টেলিভিশন "রিয়ান" টেলিভিশন। ‌'দেখিয়ে দাও বাংলাদেশ' স্লোগানকে সামনে রেখে সিঙ্গাপুর, লন্ডন, নিউইয়র্ক ও ঢাকা থেকে চারটি আলাদা বেজ-স্টেশনের মাধ্যমে পরিচালিত হবে চ্যানেলটি ♦ ঈদ মানে আনন্দ, তবে আমার জন্য না! যেমন আমার ঈদের আনন্দ কেড়ে নিয়েছে সে.....

ব্রেকিং নিউজ :
মুরাদনগরের মোচাগরা গ্রামের কারাবন্দী বাদশা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন ডিএনএ টেস্ট ভিন্ন হওয়ায় ১১ মাস ২১ দিন পর দেবীদ্বারের সেই সোহাগ জামিনে মুক্ত ফরিদপুর থেকে সুস্থ অবস্থায় পাওয়া গেল সেই রহিমা বেগমকে কুমিল্লার ছাত্রলীগ নেতা আবু কাউছার ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার দেবীদ্বারে মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় অধিদপ্তরের তিন কর্মকর্তাসহ আহত ৮, গ্রেপ্তার ৭ কুমিল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটির নতুন কমিটি ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশের নারীরা, জয়ের খবর জানেনা বাফুফের ফেসবুক পেজ কুমিল্লা জেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী কে এই বীর মুক্তিযুদ্ধা বাবলু ১৯৮৩ সালে “ওরুম” ভাঁজা দেখতে বাংলাদেশে এসেছিলেন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচনে দেবীদ্বারে ওয়ার্ড সদস্য হতে চান প্রবীণ সাংবাদিক বাশার

কুমিল্লা জেলা পরিষদে আওয়ামীলীগ প্রার্থী কে এই বীর মুক্তিযুদ্ধা বাবলু

  • প্রকাশকাল: শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

মোহাম্মদ শরিফুল আলম চৌধুরী, কুমিল্লা :বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান বাবলু যিনি একজন বর্ষীয়ান রাজনীতিক, প্রখ্যাত আইনজীবী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ১৯৪৬ সালের ১০ আগস্ট কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জন্ম নেওয়া বাবলু আওয়ামীলীগ সহসভাপতি কাজী জহিরুল কাইয়ুমের হাত ধরে ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে রাজনীতির পথে পা রাখেন। তারপর ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলনে অংশ নেন। ১৯৬৪ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত ছিলেন অবিভক্ত কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। সে সময় জাতির পিতা ঘোষিত বাঙালির মুক্তির সনদ ছয়দফা আন্দোলনে অংশ নেন। পরবর্তীতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ঊনসত্তরের গণআন্দোলনে অংশ নেন ডাকসুর সদস্য হিসেবে। সত্তরের নির্বাচনে দলের হয়ে কাজ করেন। অংশ নেন একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন অবিভক্ত কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের সমাজকল্যাণ সম্পাদকের।

পরে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, সিনিয়র সহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। বর্তমানে তিনি কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত ছিলেন চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। ১৯৮২ ও ১৯৮৮ সালে দলীয় কর্মসূচি পালনকালে বিএনপি ও ফ্রিডম পার্টির নির্যাতনের শিকারও হয়েছেন রণাঙ্গনের এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।
মফিজুর রহমান বাবলু ছিলেন ২ নম্বর সেক্টরের বীর মুক্তিযোদ্ধা। আগরতলার রাধানগরে যুব মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে তিনি সমন্বয়কের ভূমিকা পালন করেন। পুরো মুক্তিযুদ্ধের সময় চৌদ্দগ্রামে তার নিজের বাড়িটি ছিল মুক্তিবাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প। আওয়ামী লীগের নেতারাও বিভিন্ন সময়ে সেখানে বৈঠকে মিলিত হতেন। তার আরেকটি পৈতৃক বাড়িসহ এ দু’টি বাড়িতে প্রায়ই পাকিস্তানি বাহিনী হানা দিত। একপর্যায়ে পাকিস্তানিরা একটি বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। মুক্তিযোদ্ধা বাবলুর চার চাচা সেই আগুনে শহীদ হন।
দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের পাশাপাশি মফিজুর রহমান বাবলু নিজেকে জড়িয়েছেন বিভিন্ন সামাজিক কর্মকা-ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিনেট সদস্য কুমিল্লা ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন ও কুমিল্লা ক্লাবের সদস্য। তিনি বাংলাদেশ ফ্যামিলি প্ল্যানিং অ্যাসোসিয়েশনের আজীবন সদস্য। লায়ন্স ইন্টারন্যাশনাল, কুমিল্লা লায়ন্স ক্লাব,রেড ক্রিসেন্ট সহসভাপতি, কুমিল্লা কালচারাল কমপ্লেক্সের সঙ্গে জড়িত বাবলু কুমিল্লা শহর ও চৌদ্দগ্রামে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানও গড়ে তুলেছেন। বৈশিক মহামারি করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত আর্তমানবতার সেবায় এগিয়ে এসেছিলেন রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজুর রহমান বাবলু।
ব্যাক্তি জীবনে বঙ্গবন্ধুর অন্যতম সহচর এবং দলীয় সভা নেত্রী শেখ হাসিনার বিয়ের ঘটক কাজী জহিরুল কাইয়ুম তাঁর আপন মামা।
মফিজুর রহমান বাবলুর স্ত্রী রাসুও ছিলেন একজন প্রভাবশালী ছাত্রলীগ নেত্রী এবং মহিলা আওয়ামীলীগ নেতা।
বাবলুর বড় ছেলে ‘জয়’ কুমিল্লা ভিক্টোরীয়া কলেজে ছাত্রলীগের রাজনীতি করতেন, পরবর্তীতে পুলিশে চাকুরী নিয়েছিলো কিন্তু রাজনৈতিক কারনে শেষ পর্যন্ত চাকুরী ছেড়ে দেয়।
তার ছোট ছেলে জিতুও ছাত্রলীগ করতো। পরে বিটিআরসির কর্মকর্তা হয়ে বর্তমানে আমেরিকায় চাকুরীরত।
একমাত্র কন্যা মাশিয়া ইসরাত ঐশীও ছাত্রলীগ করতো, পরবর্তীতে ব্যারিষ্টারী ডিগ্রী নিয়ে হয়ে শেখ ফজলে নুর তাপসের জুনিয়র হিসেবে হাইকোর্টে প্রেকটিস শুরু করে।
বঙ্গবন্ধু অন্তঃপ্রাণ পঁচাত্তর বছর বয়সি এ মুক্তিযোদ্ধার চাওয়া বঙ্গবন্ধুকন্যার হাতে পূর্ণতা পাক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা। প্রধানমন্ত্রীর সহযোদ্ধা হয়ে নিজেকে সেই কর্মকা-ে আরও সম্পৃক্ত করতে জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন এবার।

আরও পড়ুন :  ফরিদপুর থেকে সুস্থ অবস্থায় পাওয়া গেল সেই রহিমা বেগমকে

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ ক্যাটাগরীর আরও খবর




twitt feed

Linkedin profile



Copyright ©2021,joybanglarjoy.com, All Rights Reserved.

ডিজাইনঃ নাগরিক আইটি